নৌকার পালে হাওয়া লাগাতে চান মশিউর রহমান লাখপতি

নিজস্ব প্রতিনিধি ॥
পুরো নাম মশিউর রহমান। ডাক নাম লাখপতি। সবাই আদর করে লাখপতি বলেই ডাকেন। লাখপতি নামেই বেশি পরিচিত তিনি। নাম লাখপতি হলেও বাস্তবে তিনি কোটিপতি। কামালপুর স্থলবন্দরের প্রতিষ্ঠিত একজন ব্যবসায়ী। লাখপতি নামের সাথে বাস্তবের মিল রয়েছে তার। এলাকায় বিশিষ্ট সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী হিসেবেও বেশ সুনাম রয়েছে। আগামী ইউপি নির্বাচনে ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়বেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পরিক্ষিত এই সৈনিক। স্থানীয় আওয়ামীলীগের দলীয় নেতাকর্মী ও এলাকার সাধারণ মানুষের দোয়া আর ভালোবাসা নিয়ে ইতোমধ্যে জামালপুর জেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয় থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন তিনি।
জানাযায়,ভারতীয় সীমান্তবর্তী গারোপাহাড় বেষ্ঠিত ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন। শান্তিপ্রিয় এই ইউনিয়নে আধিবাসী ভোট একটা ফেক্টর। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নের আশায় মশিউর রহমান লাখপতি ছাড়াও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ আলী ও সহ-সভাপতি আবুল খায়ের আজাদসহ আরো বেশ কয়েকজন দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। তবে এই মুহুর্তে আলোচনায় এগিয়ে লাখপতি। তিনিই হবেন নৌকার কান্ডারী এমটাই আলোচনা চলছে সর্বত্র। লাখপতিও মাঠে নেমেছেন কোমর বেধেঁ। নৌকার পালে হাওয়া লাগাতে মাঠে থাকার ঘোষনা দিয়েছেন তিনি। নৌকা পেলে জয় নিয়ে ঘরে ফিরবেন লাখপতি এমনটাই ধারনা সাধারণ ভোটারদেরও।
মশিউর রহমান লাখপতি জন্ম লগ্ন থেকেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তিনি ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি। তারই নেতৃত্বে ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সু-সংগঠিত এবং যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। তার পরিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। তার বাবা ছিলেন ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সফল সভাপতি। দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ কামালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। মশিউর রহমান লাখপতির বড় ভাই হাসান যোবায়ের হিটলার ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক পেয়েছিলেন হিটলার। এবার তিনি দলীয় মনোনয়ন চাননি। তরুন সমাজসেবক মশিউর রহমান লাখপতি রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। তিনি কামালপুর স্থলবন্দর আমদানি রপ্তানী কারক সমিতির আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ঐতিহ্যবাহী যদুরচর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষানুরাগী সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথেও জড়িত তিনি। এলাকায় পরিচ্ছন্ন রাজীনিতীবিদ হিসেবে তার বেশ সুনাম রয়েছে।
মশিউর রহমান লাখপতি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক আমি । বঙ্গবন্ধু কন্যা মাদার অব হিউমিনিটি দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে কাজ করে যাচ্ছি। আমার রক্ত আওয়ামীলীগের রক্ত। আমার পরিবারে একাধিক বীর মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন। আমার বাবা দীর্ঘ প্রায় ২২ বছর ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আমার বড় ভাই হাসান যোবায়ের হিটলার কামালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি। বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে আমার পরিবার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ্য হয়েছে। মিথ্যা হামলা মামলা দিয়ে আমাদেরকে হয়রানি করা হয়েছে। মুল কথা হচ্ছে আমি ইউনিয়ন বাসীর জন্য কিছু করতে চাই। তাদের শাসক নয়,সেবক হতে চাই। সুখে দুখে মানুষের পাশে থাকতে চাই। দেখিয়ে দিতে চাই ইচ্ছা থাকলেই উন্নয়ন সম্ভব। তাইতো বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত যে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন সেই কাজে সামান্য অংশীদারিত্ব হতেই আসন্ন ধানুয়া কামালপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীতা ঘোষনা দিয়েছি। চেয়েছি দলীয় মনোনয়ন। দল যদি সবকিছু বিবেচনা করে আমাকে মূল্যায়ন করে দলীয় প্রতীক দেয় তাহলে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ জনগনকে সাথে নিয়ে নৌকার পালে হাওয়া লাগিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছবো ইনশাআল্লাহ। আর যদি মনোনয়ন না দেয় তাহলে যাকে নৌকা প্রতীক দিবে তার পক্ষেই মাঠে কাজ করবো। পরিশেষে ধানুয়া কামালপুর ইউনিয়নের সকল জনসাধারণের দোয়া ও ভালোবাসা চাই। সারা জীবন মানুষের সেবা করতে চাই। এটাই আমার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here